| |

Ad

মাদক সেবী ধরা পড়লেও; মাদক ব্যবসায়ীরা ধরা-ছোয়ার বাহিরে

আপডেটঃ ৭:১৯ অপরাহ্ণ | মার্চ ০৪, ২০১৯

মো. আবু রায়হান, শেরপুর ঝিনাইগাতী প্রতিনিধি:
শেরপুরে মাদক সেবীরা ধরা পড়লেও, মাদক ব্যবসায়ীরা ধরা-ছোয়ার বাহিরেই থেকে যাচ্ছে। নির্মূল হচ্ছে না মাদক ব্যবসা। প্রতিনিয়ত পুলিশের চোখে ফাঁকি দিয়ে এই সমস্ত মাদক সিন্ডিকেটের লোকেরা মাদকের রমরমা ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে। মাদক ব্যবসায়ীরা অভিনব কায়দায় বিভিন্ন কৌশলে জেলাসহ পার্শ্ববর্তী উপজেলাগুলিতে নির্দিষ্ট পয়েন্টে মাদক ক্রয়-বিক্রয় করছে। আর এই সমস্ত মাদক আমদানী হচ্ছে ৩টি উপজেলা ভারত সীমান্ত ঘেষা দীর্ঘ ৬০ কি.মি পাহাড়ী দূর্গম এলাকা দিয়ে। উক্ত রাস্তাটি মাদক সিন্ডিকেটের লোকেরা মাদক আমদানী-রপ্তানী করার নিরাপদ রোড হিসাবে বেছে নিয়েছে। এই সীমান্ত পথ দিয়ে ভারত থেকে মদ, গাঁজা, হেরোইন, ফিন্সিডিল, ইয়াবাসহ বিভিন্ন জাতের মাদক আমদানী করে থাকে। আমদানীকৃত মাদক স্থানীয় ভাবে বিভিন্ন পয়েন্টে কৌশলে বিক্রি করে এবং দেশের অভ্যান্তরে পাঁচার করে মাদক সিন্ডিকেটের লোকেরা। পুলিশ প্রশাসন তৎপরতা থাকা স্বত্বেও নিয়ন্ত্রিত হচ্ছে না মাদক ব্যবসা। সূত্রমতে জানা যায়, যারা পুলিশের হাতে গ্রেফতার হয় তারা প্রকৃত পক্ষে মাদক সেবী। আর মাদক ব্যবসায়ী সিন্ডিকেটের লোকেরা ধরা-ছোয়ার বাহিরেই থেকে যায়। যে কারণে মাদক ব্যবসা কোন ক্রমেই বন্ধ হচ্ছে না। এছাড়া মাদক ব্যবসার বিশেষ কারণ হিসাবে জানা যায় এই সমস্ত মাদক ব্যবসা অধিক লাভ জনক হওয়ার কারণে বিভিন্ন সময় গ্রেফতার হওয়ার পরেও জেল থেকে বের হয়ে আবারও মাদক ব্যবসায় জড়িয়ে পড়ে। উল্লেখ্য, মাদক ব্যবসায় পুলিশের চোখকে ফাঁকি দেওয়ার জন্য বিভিন্ন সময় অভিনব কৌশল অবলম্বন করে মাদক সিন্ডিকেটের লোকেরা মাদক ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে। ভারতের সীমান্ত পথ দিয়ে চোরাই পথে বিভিন্ন জাতের মাদক আমদানী করে থাকে মাদক ব্যবসায়ীরা। আর এই সমস্ত মাদক স্থানীয় ভাবে গ্রাম-গঞ্জের বিভিন্ন পয়েন্টে বিক্রি করে থাকে। আবার কোন কোন সময় কৌশলে দেশের অভ্যান্তরে পাঁচার করে থাকে। মাদকের এই মরণ নেশায় জড়িয়ে পড়ছে স্কুল-কলেজের ছাত্র/ছাত্রীসহ উঠতি বয়সের ছেলে-মেয়েরা। বর্তমান সরকারের মাদক নিয়ন্ত্রণের কঠোর পদক্ষেপের ফলেও নিয়ন্ত্রন হচ্ছে না অত্রাঞ্চলের মাদক ব্যবসা। তাই সচেতন মহলের দাবী অবিলম্বে মাদক ব্যবসায়ীদেরকে গ্রেফতার করে সরকারের ঘোষিত মাদক বিরোধী অভিযান জিরো টলারেন্স বাস্তবায়ন করা। নচেৎ সরকারের মাদক বিরোধী অভিযান ব্যর্থতায় পর্যবেশিত হবে এবং অত্রাঞ্চলের যুব সমাজ ধ্বংসের পথে ধাবিত হবে।