| |

Ad

ডি ককের বিধ্বংসী সেঞ্চুরি

আপডেটঃ ৭:১৩ অপরাহ্ণ | মার্চ ১০, ২০১৯

খেলাধুলা সংবাদ : পাঁচ ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ। ২ ম্যাচ হাতে রেখেই জয় করে ফেলার দারুণ সুযোগ স্বাগতিক দক্ষিণ আফ্রিকার সামনে। সেই সুযোগটাকেই কাজে লাগিয়ে ফেলছে ফ্যাফ ডু প্লেসির দল। টস হেরে ব্যাট করতে নেমে ওপেনার কুইন্টন ডি ককের বিধ্বংসী সেঞ্চুরির ওপর ভর করে সফরকারী শ্রীলঙ্কার সামনে ৩৩২ রানের লক্ষ্য ছুঁড়ে দিয়েছে প্রোটিয়ারা।

টস জিতে দক্ষিণ আফ্রিকাকে ব্যাট করতে পাঠানোর ক্ষেত্রে সিদ্ধান্তটা সঠিক ছিল কি না সেটা ভাবতে ভাবতেই ওপেনার পিটার হেন্ডরিক্সকে ফিরিয়ে দেন লঙ্কান পেসার ইসুরু উদানা। দলীয় ২৪ রানের মাথায় ব্যাক্তিগত ৪ রানে ফিরে যান হেন্ডরিক্স।

লঙ্কানদের আনন্দ ওখানেই শেষ। এরপর ৯৭ রানের জুটি গড়েন কুইন্টন ডি কক এবং ফ্যাফ ডু প্লেসি। দলীয় ১২১ রানের মাথায় পড়ে দ্বিতীয় উইকেট। মালিঙ্গার বলে নিরোশান ডিকভেলার হাতে উইকেটের পেছনে ক্যাচ দিয়ে ব্যক্তিগত ৩৬ রানে ফিরে যান ডু প্লেসি।

এরপর রাশি ফন ডার ডুসেনকে নিয়ে ৬৬ রানের জুটি গড়েন ডি কক। এরই মধ্যে ৮৯ বলে নিজের ক্যারিয়ারে ১৪তম সেঞ্চুরি পূরণ করে ফেলেন ডি কক। ১৩টি বাউন্ডারির সঙ্গে ১টি ছক্কার মারও মারেন তিনি। কিন্তু ১০৮ বলে ১২১ রান করার পর কাসুন রাজিথার বলে উইকেটের পেছনে ডিকভেলার হাতে ক্যাচ দিতে বাধ্য হন তিনি। ততক্ষণে ১৬ বাউন্ডারি এবং ২টি ছক্কার মার মারেন তিনি।

ফন ডার ডুসেন করেন ক্যারিয়ারের চতুর্থ হাফ সেঞ্চুরি। ৬৬ বলে হাফ সেঞ্চুরির মাইলফলকে পৌঁছার পরের বলেই অবশ্য সাজঘরের পথ দেখতে হয় তাকে। ডেভিড মিলার ৪৬ বলে ৪১ রানে অপরাজিত থাকেন। ২৬ বলে ৩১ রান করে আউট হন দুয়ানে প্রিটোরিয়াস।

শেষ মুহূর্তে বলতে গেলে টর্নেডো তুলে দেন আন্দিল পেহলুকাইয়ো। ১৫ বলে ৩৮ রান করে অপরাজিত থাকেন তিনি। ৫টি বাউন্ডারির সঙ্গে ছক্কা মারেন একটি। শেষ পর্যন্ত ৫ উইকেট হারিয়ে ৩৩১ রানের বিশাল স্কোর গড়ে তোলে দক্ষিণ আফ্রিকা। শ্রীলঙ্কার হয়ে ইসুরু উদানা ২টি এবং লাসিথ মালিঙ্গা, কাসুন রাজিথা ও কামিন্দু মেন্ডিস নেন ১টি করে উইকেট।